আর্থিক প্রতারণার মামলায় গ্রেফতার মুকুল রায়ের শ্যালক। এবার কি মুকুলের পালা?

রেলে চাকরি দেওয়ার নাম করে অনেকের কাছ থেকে টাকা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে দিল্লি থেকে গ্রেফতার মুকুল রায়ের নিজের শ্যালক সৃজন রায়। এবার কি টার্গেট বিজেপিতে যোগ দেওয়া তৃণমূলের প্রাক্তণ সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক? মুখ খুললেন ভাটপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক এবং মুকুল বিরোধী অর্জুন সিংহ।

অর্জুন সিংহ

প্রশ্নঃ মুকুল রায়ের কী ভবিষ্যৎ?

অর্জুন সিংহঃ মুকুল রায় যা করে বেরিয়েছেন, ওঁর আর কী ভবিষ্যৎ হবে? জেলে যাবেন। শুক্রবার রাতেই দিল্লি থেকে অ্যারেস্ট হয়েছেন ওঁর শ্যালক সৃজন রায়। বীজপুর এলাকার অন্তত ১০ জন মুকুল আর ওঁর শ্যালকের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ অভিযোগ দায়ের করেছেন। মুকুল রায় যখন রেলমন্ত্রী ছিলেন তখন চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে লক্ষ-লক্ষ টাকা নিয়েছেন অনেকের থেকে। আরও নানা প্রতারণা করেছেন। সেই মামলাতে সৃজন রায় অ্যারেস্ট হয়েছেন। এবার মুকুলের পালা। খুব শিগগিরই মুকুল রায় অ্যারেস্ট হবেন এই প্রতারণার কেসে।

প্রশ্নঃ আপনি কী করে বলছেন মুকুল রায় অ্যারেস্ট হবেন?

অর্জুন সিংহঃ তদন্ত তো হচ্ছে আদালতের নির্দেশে। তাই বলছি। সরকার তো নিজে থেকে কিছু করছে না। এই প্রতারণার কেস ছাড়াও আরও বহু অভিযোগ আছে মুকুল রায়ের নামে। আস্তে-আস্তে সব জানতে পারবেন। এখন আমি কিছু বলছি না।

প্রশ্নঃ সামনে পঞ্চায়েত ভোট আসছে। মুকুল রায় এতদিনের বীজপুর, বারাকপুরের নেতা। ভোটে এই ঘটনার কী প্রভাব পড়বে?

অর্জুন সিংহঃ ধুর, কোনও প্রভাবই নেই। এই কেস না হলেও কোনও প্রভাব ছিল না। নোয়াপাড়া উপনির্বাচনে আমরা দেখিয়ে দিয়েছি এলাকায় মুকুল রায়ের কোনও প্রভাবই নেই। তাছাড়া এলাকার মানুষ কি জানেন না, মুকুল রায় কী? শালক-জামাইবাবু মিলে দিনের পর দিন টাকা তুলেছেন। জামাইবাবুর নাম করে শ্যালক টাকা তুলছে, নানারকম দুর্ণীতি করছে। আর সেই মুকুল রায়ের নামে এখানকার মানুষ বিজেপিকে ভোট দেবে? কখনও দেবে না।

প্রশ্নঃ তবে মুকুল রায়কে দলে নিয়ে বিজেপির কী লাভ হল?

অর্জুন সিংহঃ দেখুন মুকুল রায়কে নিয়ে বিজেপির এখন সাপের ছুঁচো গেলার অবস্থা। না পারছে ফেলতে, না পারছে গিলতে। মুকুল রায়কে দিয়ে যে কোনও লাভ হবে না, বিজেপি নেতারা বুঝে গেছেন।

প্রশ্নঃ আপনি বলছিলেন আরও অনেক কেস আছে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে?

অর্জুন সিংহঃ আগে তো এই কেসে অ্যারেস্ট হোক। তার পরের কেস পরে দেখা যাবে। সব আস্তে-আস্তে জানতে পারবেন।

শ্যালক সৃজন রায়ের গ্রেফতারের ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া নেওয়ার জন্য মুকুল রায়কে বারবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। তবে সৃজন রায়ের গ্রেফতারির খবর তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে স্বীকার করা হয়েছে।

Comments
Loading...