রবিবার জনতা কার্ফু: স্তব্ধ হতে পারে দেশ, বাতিল অধিকাংশ ট্রেন, বিমান, চূড়ান্ত সতর্কতা দেশজুড়ে

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ডাকে রবিবার সকাল সাতটা থেকে রাত ন’টা পর্যন্ত দেশজুড়ে চূড়ান্ত প্রস্তুতি ‘জনতা কার্ফু’র। বন্ধ থাকছে রেল, বিমান পরিষেবা। বিভিন্ন রাজ্য সরকার বাস পরিষেবা বন্ধ করার কথা ঘোষণা করেছে। দিল্লি মেট্রো রেল পরিষেবাও সম্পূর্ণ বন্ধ থাকছে রবিবার সকাল সাতটা থেকে রাত ন’টা পর্যন্ত। কলকাতায় লোকাল ট্রেন, মেট্রো চলবে অনেক কম। মেট্রো রেল আধ ঘণ্টা অন্তর চলবে বলে জানানো হয়েছে।
করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে বলিউড অভিনেতা থেকে ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক প্রধানমন্ত্রীর ‘জনতা কার্ফু’ সফল করার আহ্বান জানাচ্ছেন।
শনিবার দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩০০ ছুঁইছুঁই। এদিন পশ্চিমবঙ্গ সহ বিভিন্ন রাজ্যে নতুন করে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে তাৎপর্যপূর্ণভাবে। এই প্রেক্ষিতে রবিবার সকাল সাতটা থেকে রাত ন’টা পর্যন্ত সাধারণ মানুষকে বাড়িতে রাখার জন্য পদক্ষেপ করেছে রেল মন্ত্রক থেকে উড়ান সংস্থা। ভারতীয় রেলের ঘোষণা, শনিবার মধ্যরাত থেকে রবিবার যাত্রীবাহী ট্রেন বন্ধ থাকবে। প্রায় ২ হাজার ৪০০ টি যাত্রীবাহী ট্রেন, ১,৩০০ মেল এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল বন্ধ রাখার কথা জানিয়েছে রেল মন্ত্রক।
তবে যে দূরপাল্লার ট্রেন ইতিমধ্যে চলছে, গন্তব্যে না পৌঁছনো পর্যন্ত তাদের মাঝপথে বন্ধ করা হবে না বলে জানাচ্ছে ভারতীয় রেল। আইআরসিটিসি জানিয়েছে, রবিবার বিভিন্ন স্টেশনে তাদের ফুড স্টল বন্ধ থাকছে।
এদিকে প্রধানমন্ত্রীর জনতা কার্ফু সফল করতে এয়ারলাইন সংস্থাগুলিও রবিবার পরিষেবা বন্ধ রাখার কথা ঘোষণা করেছে। ইন্ডিগোর ঘোষণা, ২২ মার্চ তাদের ৬০ শতাংশ ডোমেস্টিক ফ্লাইট বাতিল হচ্ছে। ভিস্তারা, গো এয়ার-ও তাদের পরিষেবা বন্ধ থাকবে বলে ঘোষণা করেছে। তারা জানিয়েছে, যে যাত্রীরা রবিবার টিকিট বুকিং করেছিলেন, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে।
দিল্লি মেট্রো রেল কর্পোরেশন জানিয়েছে কোভিড-১৯ সংক্রমণ ঠেকাতে প্রধানমন্ত্রী যে ‘জনতা কার্ফু’ র ডাক দিয়েছেন, মানুষকে বাড়িতে থাকার জন্য আবেদন করে তারা রবিবার পরিষেবা বন্ধ রাখবে। নিউ দিল্লির ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশনের ঘোষণা, রাজধানীর বিখ্যাত বাজার কনট প্লেস রবিবার সকাল ৭ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত বন্ধ থাকছে।
উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের ঘোষণা, তাঁর রাজ্যে মেট্রো থেকে বাস চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে ২২ মার্চ। এ ছাড়া, তামিলনাড়ু, গুজরাত, কর্ণাটক সরকারও রবিবার বাস পরিষেবা থেকে বড় বাজার, শপিং মল বন্ধ রাখার কথা ঘোষণা করেছে। বিহার ও অসম সরকার জানিয়েছে, তারা কোনও বিশেষ ঘোষণা করে মানুষকে বাধ্য করবে না।
তবে ‘জনতা কার্ফু’ সফল করতে সবাইকে বাড়িতে থাকার আবেদন জানাচ্ছে।
কনসোর্টিয়াম অফ ইন্ডিয়ান পেট্রোলিয়াম, যাদের অধীনে দেশজুড়ে প্রায় ৫৪ হাজার ডিলার রয়েছে, তারাও রবিবার পরিষেবা বন্ধের কথা জানিয়েছে। বার কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া (BCI) ও জানিয়েছে, জনতা কার্ফু সমর্থন করছে তারা।

Comments
Loading...