খবরের কাগজের সাংবাদিক মিড ডে মিলের ভিডিও তুলবেন কেন! যোগীরাজ্যে ডিএমের সওয়াল ঘিরে প্রশ্ন

খবরের কাগজের সাংবাদিক হয়ে ঘটনার স্টিল ছবি তুলতেই পারেন, কিন্তু ভিডিয়ো কেন? উত্তর প্রদেশের মির্জাপুরে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হওয়া প্রসঙ্গে মন্তব্য করলেন জেলা শাসক অনুরাগ প্যাটেল। জেলা শাসকের এই মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা বিভিন্ন মহলে।
যোগী রাজ্যের মির্জাপুর জেলার একটি স্কুলে মিড ডে মিলে পড়ুয়াদের নুন-রুটি খেতে দেওয়ার ভিডিও তুলেছিলেন সাংবাদিক পবন জয়সোয়াল। ক’দিন আগেই তাঁর বিরুদ্ধে সরকারের নামে কুৎসা ও ষড়যন্ত্রের অভিযোগে এফআইআর দায়ের হয়। এই প্রসঙ্গে মঙ্গলবার মুখ খুললেন মির্জাপুরের জেলা শাসক অনুরাগ প্যাটেল। তাঁর কথায়, ওই সাংবাদিককের উচিত ছিল ছবি তুলে খবর পরিবেশন করা। কিন্তু তা না করে তিনি কেন ভিডিয়ো করেছেন সাংবাদিক পবন জয়সোয়াল তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জেলা শাসক। অনুরাগ প্যাটেলের অভিযোগ, উনি একজন খবরের কাগজের সাংবাদিক, ঘটনার ফটো তুলে তা খবর করলেই তো হত। কিন্তু তিনি তা না করে পুরো ঘটনার ভিডিয়ো করেন। তাই তাঁর ভূমিকা সন্দেহজনক বলে মনে করছেন তাঁরা।

সংশ্লিষ্ট ভিডিয়োটিতে দেখা গিয়েছিল, মির্জাপুরের একটি স্কুলে পড়ুয়ারা মাটিতে বসে শুকনো রুটি নুন মাখিয়ে খাচ্ছে। অথচ উত্তর প্রদেশ মিড ডে মিল অথরিটির সরকারি ওয়েবসাইটে জ্বলজ্বল করছে, সপ্তাহের কোন দিন খুদে পড়ুয়ারা মিড ডে মিলে কী খাবার পাবে তার তালিকা। এই ভিডিয়ো ছড়িয়ে পড়ার পর তদন্তে নেমেছিলেন খোদ জেলা শাসক। তখন তিনি পবন জয়সোয়ালের রিপোর্ট সত্য বলে মেনে নিয়েছিলেন। এই ঘটনার একদিন পর সংশ্লিষ্ট স্কুলের  টিচার ইন চার্জ এবং পঞ্চায়েতের সুপারভাইজারকে সাসপেন্ড করেন জেলা শাসক অনুরাগ প্যাটেল। কিন্তু পরে তদন্তে সাংবাদিক জয়সওয়ালের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে বলে জানান তিনি।
এদিকে সাংবাদিক পবন জয়সওয়ালের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হওয়ার প্রতিবাদে ১০০ জন সাংবাদিক মির্জাপুরের কালেক্টোরেট অফিস ঘেরাও করেন। সাংবাদিকের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়েরের ঘটনায় সোমবার যোগী আদিত্যনাথ সরকারের সমালোচনা করে এডিটরস গিল্ড অফ ইন্ডিয়া।
যদিও উপমুখ্যমন্ত্রী দীনেশ শর্মার প্রতিক্রিয়া, রিপোর্ট যেমনই প্রকাশ হোক, যদি কেউ সরকারকে কলঙ্কিত করার চেষ্টা করেন তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবেই। অথচ কেন পড়ুয়াদের নুন মাখিয়ে শুকনো রুটি খেতে হবে, সেই প্রশ্নের কোনও জবাব মেলেনি।

Comments
Loading...