অনেক হল চিংড়ির মালাইকারি… আর বিলম্ব নয় বাড়িতেই বানিয়ে ফেলুন ডিমের মালাইকারি

যখন কথা হলো নতুন উপকরণে মালাইকারির তখন আর দেরি কেন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে বানাবেন এই পদ?

রেস্তোরাঁ খোকশাবাড়ী মালাইকারি মানে জিভে জল বাঙালির। কিন্তু কবে আসবে সেই গলদা চিংড়ি তবেই হবে মালাইকারি।  বাঙালির রান্নাঘরে মালাইকারির কায়দায় যদি থাকে, মন্দ কী তাতে? একঘেয়েমি কাটিয়ে এবার বাড়িতেই বানিয়ে ফেলুন ডিমের মালাইকারি।

ডিম আমাদের জীবনে যেমন সহজলভ্য তেমনি তার পুষ্টিগুণ। রোজকার প্রোটিন পাতে ডিম খুবই কমন। যারা শরীরচর্চা করে এবং কোন রোগ থেকে সদ্য উঠেছে ডাক্তার তাদের কড়া নির্দেশ দেয় রোজ একটা থেকে দুটো ডিম খেতে। এছাড়াও চিকেন মটনের পরে যা চিরকাল ছিল আর থাকবে, সেটা ডিম। আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার অন্যতম পছন্দ।

যখন কথা হলো নতুন উপকরণে মালাইকারির তখন আর দেরি কেন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে বানাবেন এই পদ?

উপকরণ

ডিম: পছন্দ মতো

টক দই: ২ টেবিল চামচ

পেঁয়াজ কুচি: আধ কাপ

টোম্যাটো কুচি: আধ কাপ

কাজু বাদাম: ২০ গ্রাম

রসুন বাটা: ২ টেবিল চামচ

আদা বাটা: ১ টেবিল চামচ

হলুদ গুঁড়ো: ১ টেবিল চামচ

শুকনো লঙ্কা গুঁড়ো: ১ টেবিল চামচ

নারকেলের দুধ: আধ কাপ

নুন: স্বাদ অনুযায়ী

চিনি: স্বাদ অনুযায়ী

সর্ষের তেল: পরিমাণ মতো

প্রণালী: প্রথমে ডিমগুলি সেদ্ধ করে খোসা ছাড়িয়ে  তাতে টক দই, নুন,লঙ্কা গুঁড়ো আর সামান্য সাদা তেল দিয়ে আধ ঘণ্টা মাখিয়ে রাখুন। সেদ্ধ ডিমগুলি দু ভাগ করে নিতে পারেন আরও ভালো হয়। সে ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে যেন ডিম সেদ্ধগুলি ভেঙে না যায়। এরপর কড়াইয়ে তেল গরম করে ডিমগুলি হালকা ভেজে তুলে রাখুন। এ বার ওই কড়াইয়ে আরও খানিকটা তেল দিয়ে তাতে পেঁয়াজ, টোম্যাটো, কাঁচালঙ্কা, কাজুবাদাম,  দিয়ে ভাল করে মশলাটি ভেজে নিন। মিশ্রণটি ঠান্ডা করে মিক্সিতে বেটে নিতে হবে।

এ বার পুনরায় কড়াইয়ে তেল গরম করে তাতে আদা-রসুন বাটা ও একে একে লঙ্কা ও হলুদ গুঁড়ো  দিয়ে ভাল করে কষিয়ে নিন। মশলা থেকে তেল ছেড়ে এলে ভেজে বেটে রাখা মিশ্রণ যোগ করুন। আর একটু কষিয়ে নিন। এর পর নারকেলের দুধ যোগ করুন, ভাল করে মিশিয়ে ভেজে রাখা ডিম গুলি দিয়ে দিন। গ্রেভি মাখা মাখা হয়ে এলে গরম মশলা গুঁড়ো ছড়িয়ে গ্যাস বন্ধ করে দিন। গরম ভাত কিংবা পোলাওয়ের সঙ্গে পরিবেশন করুন ডিমের মালাইকারি।

Comments
Loading...