কেন কংগ্রেসের নির্বাচনী সাহায্যর প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলেন প্রশান্ত কিশোর?

কংগ্রেসকে নির্বাচনী রণকৌশল রচনায় সহায়তার প্রস্তাব ফেরালেন ইলেকশন স্ট্র্যাটেজিস্ট প্রশান্ত কিশোর। সূত্রের খবর, মধ্যপ্রদেশে আসন্ন ২৪ আসনের উপনির্বাচনে সনিয়া-রাহুলের দলকে সহায়তার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন তিনি।
আই প্যাকের কর্ণধার জানিয়েছেন, শুধুমাত্র প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথই নন, পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংহও আগামী বিধানসভা ভোটে প্রচারের দায়িত্ব নিতে বলেছিলেন। কিন্তু আমি সেই প্রস্তাব গ্রহণ করিনি। কারণ আমি টুকরো টুকরো করে কংগ্রেস পার্টির কাজ করতে আগ্রহী নই।
২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদীর প্রচার অভিযানের পিছনে ছিল রাষ্ট্রপুঞ্জের প্রাক্তন এই কর্মীর মস্তিষ্ক। পরবর্তীতে তৎকালীন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের সঙ্গে মতানৈক্যের কারণে তিনি সরে আসেন। তারপর একটি মাত্র ক্ষেত্র ছাড়া বাকি সর্বত্র প্রশান্ত কিশোরের নির্বাচনী কৌশল ফুল ফোটায়। উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা ভোটে প্রশান্ত কিশোর ছিলেন কংগ্রেসের কৌশলী। কিন্তু সেখানে যোগী আদিত্যনাথের বিজেপি বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়ে। অপ্রাসঙ্গিক হয়ে যায় কংগ্রেস ও সপা।
উত্তরপ্রদেশকে ব্যতিক্রম ধরলে সর্বশেষ দিল্লির হাই ভোল্টেজ ভোটে বিজেপিকে খড়কুটোর মতো উড়িয়ে অরবিন্দ কেজরিওয়াল ক্ষমতা ধরে রাখেন। তার আগে কখনও নীতিশ-লালুর মহাজোট আবার কখনও অন্ধ্রের জগন রেড্ডি, পাঞ্জাবের ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংহ, পিকের কৌশলে বাজিমাত হয়েছে বারবার।
এবার পিকের সামনে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বাংলা। ইদানীং মমতা ব্যানার্জির তৃণমূলের হয়ে কৌশল তৈরি করছেন প্রশান্ত কিশোর। পিকে দায়িত্ব নেওয়ার পর বাংলায় ৩ টি বিধানসভা আসনে উপনির্বাচন হয়েছে। সেখানে লোকসভার নিরিখে বিপুল ভোটে এগিয়ে থাকার পরও তৃণমূলের কাছে কার্যত পর্যুদস্ত হয়েছে বিজেপি। কিন্তু আসল লড়াই ২০২১ সালের বিধানসভা ভোট। এছাড়াও তামিলনাড়ুতে স্ট্যালিনের ডিএমকের ভোট কৌশল রচনা করছে পিকের আই প্যাক।
এই পরিস্থিতিতে কংগ্রেসের হয়ে টুকরো টুকরো রাজ্য ধরে কাজে আগ্রহ দেখালেন না নির্বাচনী কৌশলী প্রশান্ত কিশোর। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের অনুমান, সামগ্রিকভাবে কংগ্রেসের রণকৌশল রচনার ভার পেলে হয়ত পিকের উত্তর অন্যরকম হোত।

কংগ্রেস সূত্রের খবর, প্রশান্ত কিশোর সাধারণত বৃহত্তর প্রেক্ষাপটে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করতে পছন্দ করেন। স্বভাবতই একটি বিচ্ছিন্ন রাজ্য কিংবা কয়েকটি আসনের উপনির্বাচনের ভার হাতে নিয়ে আগ্রহ দেখাননি। কংগ্রেসের এক সিনিয়র নেতা বলছেন, আমরা পিকের কাজের পদ্ধতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। কিন্তু এই সিদ্ধান্ত নিতে পারে একমাত্র দলের শীর্ষ নেতৃত্ব, তা কোনও মুখ্যমন্ত্রী বা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর এক্তিয়ারের বাইরে। তাই বল এখন রাহুল-সনিয়া গান্ধীর কোর্টে।

Comments
Loading...