কর্ণাটকে সরকার গড়তে বিজেপিকে ডাকলেন রাজ্যপাল

শেষ পর্যন্ত বিজেপিকেই কর্ণাটকে সরকার গড়তে ডাকলেন রাজ্যপাল। বৃহস্পতিবারই মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেবেন ইয়াদুরাপ্পা। মঙ্গলবার ফল বেরনোর পরই টানাপোড়েন শুরু হয়েছিল সরকার গড়া নিয়ে। বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণে ১০ দিন সময় পাবেন তিনি। বিজেপি ১০০ কোটি টাকা নিয়ে বিধায়ক কিনতে নেমেছে বলে অভিযোগ করেছে কংগ্রেস-জেডিএস।

বুধবার সকাল থেকে প্রতি মুহূর্তে বদলেছে কর্ণাটকের রাজনৈতিক পটচিত্র। কে ডাক পাবে সরকার গড়তে সেদিকেই নজর ছিল গোটা দেশের। মঙ্গলবার কর্ণাটক বিধানসভার ফলাফল প্রকাশ হতেই পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল, একক সংখ্যা গরিষ্ঠতা নিয়ে কোনও দলই সরকার গড়তে পারছে না। ১০৪টি আসন জিতে সরকার গড়ার দৌড়ে এগিয়ে থাকা বিজেপি মঙ্গলবারই দাবি করেছিল, কর্ণাটকে তারাই সরকার গড়বে। সেই মতো বুধবার সকালে রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের কাছে সরকার গড়ার দাবি জানিয়ে এসেছেন বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী ইয়াদুরাপ্পা। বিজেপি চাইছিল, বৃহস্পতিবারই শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান করে ফেলতে। বিজেপি শিবিরের দাবি, জয়ী নির্দল বিধায়কদের সমর্থন পাবে তারা। আর শঙ্কর নামের এক নির্দল বিধায়ক এদিন বিজেপি নেতাদের সঙ্গে রাজভনেও যান।
বুধবার বিজেপি’র বিরুদ্ধে বিধায়ক কেনাবেচার চেষ্টার অভিযোগ এনেছেন জেডিএস নেতা এইচডি কুমারস্বামী। তাঁর অভিযোগ বিধায়ক কিনতে ১০০ কোটি টাকা ঘুষের প্রলোভন দেখাচ্ছে বিজেপি। এদিন বিকালে কংগ্রেস-জেডিএস জোটের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী এইচডি কুমারস্বামী ১১৭ জন বিধায়কের সাক্ষর সম্বলিত কাগজ রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করে তাঁর হাতে তুলে দেন। কংগ্রেস-জেডিএস জোটের দাবি, তাঁদেরই সরকার গড়তে ডাকা উচিত।

এদিকে তাৎপর্যপূর্ণভাবে তাঁদের সাংসদ এবং বিধায়কদের ফোন ট্যাপ করা হচ্ছে বলে বিজেপির তরফ থেকে অভিযোগ আনা হয়। বুধবার সকাল থেকে দফায় দফায় সরকার গড়াকে কেন্দ্র করে নাটকীয় টানাপোড়েন চলে বেঙ্গালুরুতে। বিজেপি এবং কংগ্রেস-জেডিএস জোট দুই তরফেই সরকার গড়তে চেয়ে রাজ্যপালের কাছে দরবার করা হয়েছে।

Comments
Loading...